spot_img
শনিবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪
24 C
Bangladesh
শনিবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪
শনিবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪
spot_img
আরও
    DinBartaঢাকানরসিংদীমসজিদে মেয়ে বাচ্চাকে নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, এক জন নিহত
    spot_imgspot_img

    মসজিদে মেয়ে বাচ্চাকে নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, এক জন নিহত

    মেয়ে বাচ্চাকে মসজিদে নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে শুরু হওয়া তর্ক ও সংর্ষের জেরে নরসিংদীর একটি গ্রামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে।

    নরসিংদীর রায়পুরা থানার উত্তর বাখরনগর ইউনিয়নের বাহাদুরপুর গ্রামে গত বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) ওই সংঘর্ষের ঘটনা হলেও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা আহত ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে গতকাল রবিবার (১০ এপ্রিল)।

    আরও পড়ুনঃ ঈদযাত্রার আগাম ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু হবে আগামী ২৩ এপ্রিল থেকে

    ওই ঘটনায় মামলা হওয়ার পর পুলিশ এখন পর্যন্ত একজনকে গ্রেপ্তার করতে পেরেছে।

    নরসিংদীর রায়পুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজিজুর রহমান বলেন, বৃহস্পতিবার বাহাদুরপুর গ্রামের একটি মসজিদে স্থানীয় একজন ব্যক্তি তার মেয়ে বাচ্চাকে সাথে নিয়ে ইফতার করতে গিয়েছিলেন।

    মেয়ে বাচ্চাকে মসজিদে নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে সেখানকার আরেকজন ব্যক্তির সঙ্গে তার তর্ক শুরু হয়।

    আরও পড়ুনঃ প্রবাস থেকে এসে দেখেন স্ত্রী তালাক দিয়ে মামাতো ভাইকে বিয়ে করেছেন

    পুলিশ জানিয়েছে, এর জের ধরে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়।

    দুই পরিবারের সদস্যরা সেই সংঘর্ষে অংশ নেন।

    এক পর্যায়ে গ্রামের আরও মানুষ এই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

    নিহতের পরিবার থানায় যে লিখিত অভিযোগ করেছে, সেখানে তারা লিখেছেন নিহত লালচান মিয়া সংঘর্ষে অংশ নেননি, তিনি শুধু সংঘর্ষ থামানোর চেষ্টা করছিলেন।

    আরও পড়ুনঃ জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ডেকে প্রেমিকাকে ধর্ষণ করেছে, পরে মৃত্যু

    এসময় দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে তিনি গুরুতর আহত হন।

    সেদিন রাতেই তাকে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

    গতকাল রবিবার দুপুরে হাসপাতালে মৃত্যু হয় হয় লালচান মিয়ার।

    ওই সংঘর্ষের পরদিন লালচানের পরিবারের পক্ষ থেকে রায়পুরা থানায় একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছিল।

    ওসি আজিজুর রহমান জানাচ্ছেন, এ ঘটনায় ১২ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা করা হয়েছে।

    তার মধ্য একজনকে তারা গ্রেপ্তার করতে পেরেছেন।

    বাহাদুরপুর গ্রামটির বহু মানুষ এ ঘটনার পর পালিয়ে আছে বলে জানা গেছে।

    spot_imgspot_img

    ফলো করুন-

    সম্পর্কিত বার্তা

    জনপ্রিয় বার্তা

    সর্বশেষ বার্তা